আসাম: লক্ষিমপুর জেলা প্রশাসন দুর্গাপূজার জন্য দিকনির্দেশনা ঘোষণা করেছে

লখিমপুর জেলা প্রশাসন বুধবার দুর্গাপূজা উদযাপন উপলক্ষে এক নির্দেশিকা নির্ধারণ করে এর প্রতিপালন করে COVID-19 প্রোটোকল

উত্তর লখিমপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কনফারেন্স হলে আয়োজিত এক সাংবাদিক বৈঠকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

গণমাধ্যমকে উদ্দেশ্য করে লক্ষিমপুর জেলা প্রশাসক জীবন বি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই প্রস্তুতির বিষয়টি বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছেন দুর্গা পূজা জেলায় উদযাপন।

তিনি জানান, জেলায় এবার কেবলমাত্র পূজা হবে এবং কেবলমাত্র ৩৩ টি পূজা মন্ডপ নিয়ে কোনও উত্সব হবে না।

ডিসি জানিয়েছিল যে উত্তর লক্ষিমপুরে ২৫ টি পূজা মন্ডপ থাকবে এবং বিহপুরিয়া ও নারায়ণপুরে ৪ টি করে পূজা মন্ডপ থাকবে।

পূজা কমিটির সদস্যরা পূজা চলাকালীন জেলা প্রশাসন কর্তৃক পুজোর সময় মণ্ডপের অভ্যন্তরে সিভিডি -১৯ প্রোটোকল পর্যবেক্ষণের জন্য প্রশিক্ষণ দিয়েছিল।

কেবলমাত্র 20 জন ভক্ত এবং 10 টি পূজা কমিটির সদস্যকে একবারে কোনও পূজা মন্ডপের ভিতরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হত এবং মুখোশ পরা না করে প্রবেশ নিষিদ্ধ ছিল।

জেলা প্রশাসন উদযাপনের সময় পূজা মন্ডপে র্যান্ডম কোভিড পরীক্ষাও করত, ডিসি জানান।

জেলা প্রশাসক আরও ঘোষণা করেছিলেন যে দুর্গাপূজার অধীনে জেলায় জেলায় বেশ কয়েকটি নিষেধাজ্ঞামূলক ব্যবস্থা জারি করা হয়েছে সিআরপিসির ১৪৪ ধারা

আগাম আগ্নেয়াস্ত্র বহন, পূর্ব অনুমতি ব্যতীত ব্যক্তি ও সংস্থার দ্বারা প্রাণঘাতী অস্ত্র বহন করা, কোলে একটি শিশু সহ মহিলা, পুলিশ কর্মী ও মিডিয়া ব্যক্তির ব্যতীত পিলিয়ন রাইড, রাত ১০ টার পর পটকা এবং সংগীতের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয় জেলায় পূজা উদযাপনের সময়।

নিমজ্জন দিবসে জেলা প্রশাসন নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে কেবল পাঁচজন স্বেচ্ছাসেবীর অংশগ্রহণের অনুমতি দেয়।

ডিসিও ঘোষণা করে যে COVID-19 মাত্র 78৮ টি ইতিবাচক ক্ষেত্রে জেলার পরিস্থিতি উন্নত হয়েছিল।

তিনি আরও জানান, জেলায় পাঁচটি কোভিড কেয়ার সেন্টারের জন্য অতিরিক্ত পাঁচটি অ্যাম্বুলেন্সের সাথে জেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ওষুধ, অক্সিজেন এবং বিছানা পাওয়া যায়।

লখিমপুর পুলিশ পূজা চলাকালীন মুখোশ পরে এবং সামাজিক দূরত্ব রেখে জেলা কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করার জন্য জনগণকেও আহ্বান জানিয়েছে।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, মুখোশবিহীন লোকদের পুজোর সময় 1000 টাকা জরিমানা করা হবে।